34537
page-template/template_concern_page.php

0
page-template/template_concern_page.php

মুখে বড় উন্মুক্ত পোরস (pores): কারণ ও চিকিৎসা

Highlights

  • ● পোর হল সেই প্রণালীর মুখগুলো যা ত্বকের ভিতরের স্তর থেকে ঘাম ও তেল/সেবাম (sebum) উপরে বয়ে নিয়ে আসে।
  • ● উন্মুক্ত পোর জাতি ও বয়স অনুসারে বিভিন্ন রকম হতে পারে। এটি মহিলা ও পুরুষ উভয়ের মধ্যে পাওয়া যায়।
  • ● মুখের পোর বয়সের সাথে আরো স্পষ্ট হয়ে ওঠে।
  • ● প্রাথমিক পর্যায়ে পোর এত ছোট থাকে যা খালি চোখে দেখা যায় না, তবে ত্বকের ক্ষয়, বয়স, হরমোন (hormone), জেনেটিক্স (genetics) ও তৈলগ্রন্থীর কাজের পরিবর্তন অনুযায়ী পরে বড় হয়ে যেতে পারে।
  • ● ত্বকের পোর বিভিন্ন মাপের হয়। এগুলির ব্যাস ৫-১০ মাইক্রন থেকে ৪০-৮০ মাইক্রন অবধি হতে পারে।

উন্মুক্ত পোর কাকে বলে?

‘উন্মুক্ত পোর’ মানে আসলে হল বিস্ফারিত বা বড় আকারের পোর। ত্বকের এই উন্মুক্ত পোরগুলি সেবাম (sebum-ত্বকের প্রাকৃতিক তেল) ত্বকের উপর বেরোতে দিয়ে ত্বককে ‘শ্বাস’ নিতে সাহায্য করে।

মুখে বেশি পরিমাণে বড় পোর দেখা যায় কারণ মুখে প্রচুর তৈলগ্রন্থী থাকে, বিশেষতঃ ‘টি-জোনে’ (t-zone)। তৈলাক্ত বা মিশ্রিত প্রকৃতির ত্বকে বড় পোর বেশি দেখা যায় (কারণ এখানে সেবাম বেশি তৈরি হয়)। জেনেটিক্স, জাতি, বয়স, লিঙ্গ ও ত্বকের স্বাভাবিক অবস্থা – এগুলির উপরেই পোরের বিন্যাস নির্ভর করে ।

মুখে বড় পোর কেন দেখা যায়?

দেহের ভিতরের ও বাইরের বিভিন্ন কারণে পোরের মাপ ও বিন্যাসে পরিবর্তন আসতে পারে, যেমন:

  • অতিরিক্ত সেবাম- হেয়ার ফলিকলের (hair follicle) আকার ফাঁপা নলের মত। সেবামের অতিরিক্ত নিঃসরণ ও প্রবাহের ফলে হেয়ার ফলিকলের মুখগুলি চওড়া হয়ে যেতে পারে যার ফলে বড় পোর দেখা যায়।
  • বড় আয়তনের হেয়ার ফলিকল- মোটা হেয়ার ফলিকলের মুখটির ব্যাসও বড় হয়। তেল বেরোনোর সময় এটি আরও বিস্তৃত হয়ে যায়, তাই পোরও দেখতে বড় লাগে।
  • জেনেটিক্স ও বংশগত কারণ- জেনেটিক প্রবণতা এবং জাতির উপর নির্ভর করে পোরের মাপের তারতম্য হতে পারে।
  • বয়স বাড়া ও সূর্যালোকের প্রভাব- বয়স বাড়লে, এবং সূর্যরশ্মি দ্বারা ক্ষতিগ্রস্ত হলে ত্বকের কোলাজেন (collagen) ও ইলাস্টিন ফাইবার (elastin fibre) পরিবর্তিত হয়ে যায়, যার ফলে ত্বকের প্রসারণশক্তি (tensile strength) ও স্থিতিস্থাপকতা (elasticity) কমে যায়। এর ফলে হেয়ার ফলিকলের চারপাশে থাকা জিনিসগুলির আয়তনে পরিবর্তন আসে, এবং পোরগুলি বড় গর্তের মত দেখতে লাগে। অতএব বয়স্ক মানুষদের ক্ষেত্রে বড় পোর বেশি দেখা যায়।
  • ক্রনিক (chronic) ব্রণ- ব্রণ-প্রবণ ত্বকে পোরগুলি আটকে খোলা কমেডোন (open comedone) সৃষ্টি করে। এছাড়া, প্রদাহযুক্ত (inflammatory) ব্রণ হলে তৈলগ্রন্থী ও হেয়ার ফলিকল দুর্বল হয়ে পড়ে যার ফলে পোর আকারে বেড়ে যায়।
  • হরমোনের তারতম্য- হরমোনের জন্য তৈলগ্রন্থীর কার্যকারিতায় পরিবর্তন হতে পারে, যাতে অতিরিক্ত সেবাম নিঃসরণ হয়ে উন্মুক্ত পোরের জন্ম দিতে পারে।
  • গুরুতর ত্বকের রোগ বা পুষ্টির অভাব- দীর্ঘস্থায়ী রেডিওডার্মাটাইটিস (chronic radiodermatitis) বা ভিটামিন এ-র অভাবে পোরের আকার বেড়ে যেতে পারে।

মুখের পোর কিভাবে চিহ্নিত (diagnosis) করা যায়?

একজন চর্মবিশেষজ্ঞ প্রথমে মুখের উদ্দিষ্ট জায়গাটি ভালভাবে দেখে মূল্যায়ন করবেন। তিনি নিম্নলিখিত নির্ণায়কগুলির উপর ভিত্তি করে সমস্যার গুরুত্ব নির্ধারণ করবেন:

  • পোরের আকার
  • পোরের অবস্থান
  • পোরের ঘনত্ব
  • কত শতাংশ ত্বক প্রভাবিত হয়েছে

এই মূল্যায়ন করার পর চর্মবিশেষজ্ঞ আপনার ত্বকের সমস্যার বিশদ ব্যাখ্যা করবেন ও মূল কারণটি চিহ্নিত করবেন। এর উপর ভিত্তি করে তিনি আপনাকে পোর কমানোর জন্য লাগানোর (topical) ওষুধ, খাওয়ার ওষুধ বা কোনো চিকিৎসা প্রক্রিয়ার পরামর্শ দেবেন।

আপনার কি ঝুঁকি আছে?

মুখের বড় পোর ছাড়া যদি আপনি ত্বকের সংক্রমণ বা ব্রণর সমস্যায় ভোগেন, তবে আপনার চর্মবিশেষজ্ঞ দেখানো প্রয়োজন। মনে রাখুন যে:

  • মুখের বড় পোর বিপদজনক নয়, এতে কোন দাগ হয়না এবং এর সাথে অন্য কোন ত্বকের রোগের সম্পর্ক নেই। এগুলির আলাদা করে চিকিৎসার প্রয়োজন নেই।
  • পোরের আকার, বিন্যাস বা ঘনত্বে কোন আকস্মিক পরিবর্তন হলে একজন চর্মবিশেষজ্ঞর পরামর্শ নেয়া প্রয়োজন। তিনি পরীক্ষা করে দেখতে পারবেন যে এর ফলে ত্বকের কোন সৌন্দর্যহানি হতে পারে কিনা।

নিজের যত্ন নেওয়া

যদিও অধিকাংশ মানুষের কাছে এটিই প্রথম পছন্দ, আপনার চর্মবিশেষজ্ঞ অনুমোদন না করলে কোন প্রোডাক্ট ব্যবহার না করাই ভালো; এবং ঘরোয়া টোটকা নিয়ে পরীক্ষা করা থেকে বিরত থাকুন। এই ধরণের ঘরোয়া সমাধানগুলি ব্যক্তিবিশেষের ত্বকের প্রকৃতি এবং পোর বেড়ে যাওয়ার প্রকৃত কারণ অগ্রাহ্য করে সাধারণভাবে ব্যবহার করা হয়। এই ধরণের টোটকা ব্যবহার করতে গিয়ে অ্যালার্জি দেখা দেওয়ার সম্ভাবনা আছে।

বিস্ফারিত ও উন্মুক্ত পোরের চিকিৎসা

অনেকগুলি কারণ থাকার ফলে মুখের বড় পোরের চিকিৎসা একটু সমস্যাজনক হয়। চিকিৎসা করে আমরা আনুষঙ্গিক সমস্যাগুলিকে দূর করার চেষ্টা করি যেমন অতিরিক্ত সেবাম নিঃসরণ এবং ত্বকের বয়স বাড়া।

সাধারণতঃ চর্মবিশেষজ্ঞরা লাগানোর, খাওয়ার ওষুধ এবং চিকিৎসা প্রক্রিয়া একসাথে যোগ করে উন্মুক্ত পোরের চিকিৎসা করেন। সমস্যার কারণ ও ব্যাপ্তির উপর নির্ভর করে এর মধ্যে পড়ে টপিকাল (topical) বা মুখে খাওয়ার রেটিনয়েড (retinoid), মুখে খাওয়ার অ্যান্টিঅ্যান্ড্রোজেন (antiandrogen), কেমিক্যাল পিল (chemical peel), লেজার (laser) এবং মাইক্রোনিডলিং রেডিওফ্রিকোয়েন্সি (microneedling radiofrequency)।

  • টপিকাল (topical) লাগানোর ওষুধ- এগুলি হল লাগানোর ওষুধ যেমন ট্রেটিনয়েন (tretnoin), নিকোটিনামাইড (nicotinamide), ভিটামিন সি বা এএইচএ (AHA)।
  • খাওয়ার ওষুধ- আপনার চর্মবিশেষজ্ঞ আপনাকে রোগের মূল কারণের উপর নির্ভর করে কিছু খাওয়ার ওষুধের নির্দেশ দিতে পারেন, যেমন মুখে খাওয়ার রেটিনয়েড (retinoid) আইসোট্রেটিনয়েন (isotretinoin), অ্যান্টিঅ্যান্ড্রোজেন স্পাইরোনোল্যাকটন (spironolactone) এবং গর্ভনিরোধক বড়ি (oral contraceptive pill)।
  • লেজার টোনিং (laser toning)- চর্মবিশেষজ্ঞরা কিউ-সুইচড এনডি য়াগ লেজার (Q-switched NdYAG laser) এবং ফ্র্যাকশনেটেড আরবিয়াম য়াগ লেজার (fractionated erbium YAGb laser) ব্যবহার করে কোলাজেন তৈরি বাড়াতে পারেন এবং ব্রণর ক্ষতচিহ্ন ও উন্মুক্ত পোরের সমস্যা কমাতে পারেন। একটি ২০১১ সালের গবেষণায় দেখা গেছে যে কিউ-সুইচড এনডি য়াগ লেজার যদি আলোক-সক্রিয় (photo-activated) টপিকাল সল্যুশনের সাথে ব্যবহার করা হয় তাহলে উন্মুক্ত পোরের সমস্যা স্পষ্টভাবে কমানো যেতে পারে।
  • ফ্র্যাকশনাল মাইক্রোনিডলিং রেডিওফ্রিকোয়েন্সি- ডাক্তাররা ছোট্ট ছুঁচ দিয়ে ত্বকের গভীরে রেডিওফ্রিকোয়েন্সি এনার্জি (energy) পৌঁছে দিয়ে থার্মাল জোন (thermal zone) তৈরি করতে পারেন। এতে কোলাজেন ও ইলাস্টিন তৈরি বাড়ে এবং উন্মুক্ত পোরের সমস্যা কমে।

 

  • কেমিক্যাল পিল (chemical peel)- স্যালিসাইলিক অ্যাসিড (salicylic acid) পিল এবং গ্লাইকলিক অ্যাসিড (glycolic acid) পিল দিয়ে ত্বকের মৃত কোষকে নিয়ন্ত্রিত ভাবে সরিয়ে দেওয়া যেতে পারে (exfoliation), এতে সেবাম নিঃসরণ কমে এবং ত্বক পুনরুজ্জীবিত হয়ে ওঠে, যার ফলে উন্মুক্ত পোর কমে যায়।

 

  • কমেডোন এক্সট্র্যাকশন (comedone extraction)- চর্মবিশেষজ্ঞরা বিশেষ যন্ত্র ব্যবহার করে ওপেন (open) কমেডোন বা ব্ল্যাকহেড (blackhead) এবং ক্লোজড (closed) কমেডোন বা হোয়্যাইটহেড (whitehead) নিষ্কাশন করতে পারেন, যার ফলে ফলিকলের মুখগুলি পরিষ্কার হয়ে যায় এবং পোরগুলি ছোট হয়ে যায়।

মুখের ত্বকে বড় পোর হওয়া কিভাবে প্রতিরোধ করা যেতে পারে?

একটি নিয়মিত ত্বকের যত্নের রুটিন (routine) মেনে চললে মুখের পোরের আকার কমানো সম্ভব। আপনার ত্বকপরিচর্যার এই ধাপগুলি থাকা প্রয়োজন:

 

  • পরিষ্কার করা- একটি হালকা নন-কমেডোজেনিক (non-comedogenic) ক্লিনজার দিয়ে দিনে দুবার মুখ ধুয়ে পোরের মুখগুলি পরিষ্কার রাখুন।
  • নিরাপদ রাখা- একটি ব্রড-স্পেকট্রাম (broad-spectrum), জলরোধক (water-resistant), ৩০ বা তার বেশি এসপিএফ (SPF) যুক্ত সানস্ক্রিন প্রত্যেক দিন ব্যবহার করুন যাতে সূর্যালোকের প্রভাব থেকে বাঁচা যায়।
  • পুষ্টি দেওয়া- তৈলাক্ত ত্বকের উপযুক্ত ময়েশ্চারাইজার (moisturiser) ব্যবহার করুন। কোলাজেন বাড়ানোর প্রোডাক্ট (product) ব্যবহার করুন।
  • চিকিৎসা করা- একজন অভিজ্ঞ চর্মবিশারদকে দেখিয়ে ব্রণ ও ঝুলে পড়া ত্বকের জন্য খাওয়ার বা লাগানোর ওষুধ ব্যবহার করুন বা কোন চিকিৎসা প্রক্রিয়া করান, যাতে পোর আর না বাড়ে।

উল্লেখযোগ্য টিপ (tip): শুধুমাত্র নন-কমেডোজেনিক ত্বকপরিচর্যা ও মেকআপের সামগ্রী ব্যবহার করুন।

আরোগ্যসম্ভাবনা (prognosis)

আপনি যদি জানতে চান মুখের উম্মুক্ত পোরগুলিকে কিভাবে বন্ধ করা যায়, তবে আপনি বাড়িতে ত্বক পরিষ্কার রাখতে পারেন এবং রোদ থেকে বাঁচিয়ে রাখতে পারেন। তবে কোন চিকিৎসা দিয়ে মুখ থেকে পোর পুরোপুরি বা দীর্ঘস্থায়ী ভাবে দূর করা সম্ভব না। অত্যাধুনিক চর্ম প্রযুক্তির সাহায্যে আপনি ত্বকের উন্মুক্ত পোর কমাতে পারেন এবং নিজের ত্বককে মসৃণ ও উজ্জ্বল করে তুলতে পারেন।

যদি উন্মুক্ত পোর আপনার সৌন্দর্যহানি করে, তবে উপযুক্ত চিকিৎসার ব্যাপারে জানতে আজই একজন চর্মবিশেষজ্ঞর পরামর্শ নিন।

Want a callback?Please fill this form

Subscribe to Newsletter

Expert guide to flawless skin and nourished hair from our dermatologists!